যাদের মহান আল্লাহ তায়ালা সৃষ্টি করছে জাহান্নামের জন্য

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়াবারকাতুহু

সুপ্রিয় ইজানো এর ভিজিটর মন্ডলি আশা করি মহান আল্লাহ তায়ালার অশেষ মেহেরবানী আর দয়ায় আপনারা সবাই ভালো আছেন

প্রিয় ভাইয়েরা আজকে এমন কিছু কপাল পোড়া মানুষের কথা আপনাদের বলবো যাদের কথা হয়তো এর আগে কোনোদিন শুনেন নাই আপনি।আল্লাহ একটা আজাবের পরে আরেকটা আজাব আসার পরেও যদি আমাদের ভিতরে কোনো প্রকার পরিবর্তন না আসে। আমাদের যদি চেতনা না আসে তাহলে আমি আজকে আপনাদের একটি খবর দিতে চাই। খবরটা হলো পবিত্র কুরআন বলছে – কিছু মানুষ আছে যাদের মহান আল্লাহ তায়ালা সৃষ্টি করছে ওই ভয়াবহ জাহান্নামের আগুনে পোড়ানোর জন্য ; নাউজুবিল্লাহ – ।

প্রিয় ভাইয়েরা আমি কথাটা আবার ও বলছি মহান আল্লাহ তায়ালা বলছেন কিছু মানুষকে আমি সৃষ্টিই করছি জাহান্নামে দেওয়ার জন্য।  একটু গভীর ভাবে ভেবে দেখুন যাদের সৃষ্টিই করা হয়েছে জাহান্নামে দেওয়ার জন্য তাদের জান্নাতে যাওয়ার কি কোনো পথ আছে? এর থেকে কপাল পোড়া আর কেই বা হতে যাদের জাহান্নামে যাওয়ার জন্য জন্ম, কিন্তু তারা কারা যাদের মার্কা আল্লাহ তায়ালা বলেই দিয়েছেন – সেই লোক গুলোকে জাহান্নমের জন্য তৈরি করা হয়েছে।যাদের জাহান্নমে যাওয়া অপরিহার্য, যাদের জন্ম জাহান্নামের জন্য, যাদের আল্লাহ তায়ালা সৃষ্টি করেছেন জাহান্নামে দেওয়ার জন্য।

যাদের জাহান্নামের জন্য সৃষ্টি করা হয়েছে তাদের মার্কা কি?

তাদের ৩টি মার্কা রয়েছে –

  1. তাদের কে আল্লাহ তায়ালা অন্তর দিয়েছেন কিন্তু সেটা দিয়ে তারা অনুভব করে না।তাদের কোনো উপলব্ধি নেই।তারা শেখার জন্য চেষ্টাও করেনা এবং এই মানুষ গুলোর অন্তরে মহান আল্লাহ তায়ালা মোহরও মেরে দিয়েছেন।দীনি কথা, হেদায়েতর কথা, ইসলামের কথা, ওয়াজ মাহফিল তাদের অন্তরে কোনোদিন প্রবেশ করবে না।তারা শুনেও না শুনার চেষ্টাও করে এবং শুনার ভান করে বুঝেও না বুঝার ভান করেন।কোনো কথাও তাদের ধরে না এটা একটা মার্কা যে আপনাকে জাহান্নামের সেই মহারোগে ধরছে। যদি এই মহারোগ আপনাকে ধরে তাহলে দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করুন কেননা মহান আল্লাহ তায়ালার ওই ভয়াবহ জাহান্নামে আপনাকে পোড়ানোর জন্য ফাকা পড়ে আছে আপনার জয়গা টুকু
  2. যাদের জাহান্নামে পোড়ানোর জন্য সৃষ্টি করা হয়েছে তাদের দ্বিতীয় মার্কা হলো – তাদের কান আছে কিন্তু কানে শুনে না, কোনো কিছু গ্রহণ করে না, তাদের চোখ আছে কিন্তু চোখ দিয়ে দেখে না। চোখ দিয়ে দেখে আল্লাহর কুদরত, চোখ দিয়ে দেখে আল্লাহর পাকড়াও,আজাব,গজব, জালেমদের পরিণতি,হারামখোর দের পরিণিতি সব কিছু দেখে তবুও দেখার পর এগুলো থেকে শিক্ষা গ্রনণ করে না তারাও ওই জাহান্নামের অদিবাসী। অন্তর এতোটাই শক্ত হয়ে গেছে যেই পযন্ত তাকে আঘাত না করা হচ্ছে সেই পযন্ত তার কোনো কিছুতে কিছু যায় আসেনা।প্রিয় ভাইয়েরা তাদের অন্তরে আল্লাহ মোহর মেরে দিয়েছেন যার কারণে তারা চোখ থাকতেও কানা, মুখ থাকতেও বোবা। তাদের অন্তর শক্ত করে দিয়েছেন আল্লাহ তায়ালা অতিমাত্রায় গুনা কাজে লিপ্ত থাকার কারণে তাদের এমন পরিণতি হয়েছে। এই জাতীয় মানুষের কোনো হিতাহিত বিবেক নেই, তাদের কোনো পরিবর্তন আসেনা। মহান আল্লাহ তায়ালা বলেছেন এসব মানুষ চতুস্পদ জন্তুর মতো – চতুষ্পদ জন্তু যেমনটা কিছু শুনেও শুনেনা কিছু দেখেও দেখেনা কোনোকিছু উপলব্ধি করার ক্ষমতা নেই তাদের।এস লোকদের বাহ্যিক আচরণে যদিও মান ও হুশ সম্পন্ন মানুষ বলা যেতে পারে কিন্তু তারা আসলেও পা চতুষ্পদ জন্তু হয়ে গিয়াছে। এতো পথ হারা মানুষ যারা কোনো ভালোমন্দ কান দিয়েও ঢুকে না।
  3. যাদের জাহান্নামে পোড়ানো জন্য সৃষ্টি করা হয়েছে তাদের তৃতীয় মার্কা হলো – যারা অন্যের বিষয় নিয়ে হানাহানি করে, অন্যের নামে গিবত করে হিংসা করে তাদের জন্যও ওই জাহান্নামের একটা অংশ ফাঁকা পরে আছে, কেননা হিংসা মানুষকে তিলে তিলে পোড়ায়, হিংসা তৈরি করে একে অন্যের প্রতি ঘৃণা আর ওই ঘৃণা থেকে মানুষকে অমানুষ হিসেবে গড়ে তুলে তাই আপনার মধ্যে যদি এস লক্ষন থাকে তাহলে আজকে এখনু সব মুছে ফেলুন কেননা মহান আল্লাহ তায়ালার শাস্তি অনেক ভয়াবহ, আর ওই জাহান্নামের শুরু আছে কিন্তু শেষ নেই এটা অনন্তকাল থেকেই যাবে। যদি একবার জাহান্নামে যান তাহলে সেখান থেকে বাঁচার কোনো উপায় নেই।  সেইখানেই সারাজীবন কাটাতে হবে,  সারাজীবন বলতে যেই জীবনের কোনো সমাপ্তি ঘটবে না শুধু একদিন চালু করে দেওয়া হবে যা কখনো শেষ হবে না এটাই জাহান্নাম।

আমরা সব সময় মহান আল্লাহ তায়ালার হুকুম মানব সবার সাথে ভালো ব্যবহার করবো

খোদা হাফেজ সবাই ভালো থাকবেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *