বুদ্ধিমান লোকের কিছু ভালো অভ্যাস জেনে নিন

বুদ্ধিমান লোকের মধ্যে কিছু স্পেশাল গুন তার মধ্যে একটি হলো এরা কেবল অন্যের কথা শুনে কোনো কিছুকে বিশ্বাস করে না। তারা নিজের মতো করে কাজ করে নিজের জীবনের স্টাইলকে আরো সুন্দর করে তোলে।এর জন্যই এরা কোনো পরীক্ষায় নম্বর দেখে তারা নিজের স্কিলকে আরো বেটার তৈরি করে।তাই সবার প্রথমে আপনাকে একটা বিষয় ভালোভাবে বুঝতে হবে যে জীবনে শুধু রুলস ফলো করে কিছু হবে না।

যদি সব কিছু আপনি পারফেক্ট করতে চান একভারে টপে যেতে চান, লাইফে কোনো দুঃখ না চান তাহলে এটা করে কখনোই আপনি একটা সুন্দর জীনব পাবেন না।কারণ জীবনে খুশিটে থাকার জন্য এই সব কিছুর দরকার আছে।তাই আপনার জীবন এমন তৈরি করবেন না যাতে আপনি কোনো এক্রপিরিয়ান্সই পাবেন না। তাই আপনার লাইফে তা ইনকম্পিলিট ই থেকে যাবে।

যাদের বুদ্ধি কম বা বোকালোক তারা তাদের মাইন্ডকে কখনোই চেন্জ করতে চায় না।আমাদের চারপাশে এরকম কিছু লোক থাকে যারা কেবল তাদের কথা গুলোকেই সঠিক মনে করে।যাদের কিছু যায় আসে না তাদের আপনি যতই ভালো জিনিস দেখান না কেন তারা কখনই দেখবে না তারা এটাই দেখবে যা তাদের কাছে সঠিক মনে হবে। তাই লোককে ভালো কিছু দেখানো বন্ধ করুন। আর নিজেকে কখনো তাদের মধ্যে আসতে দেখেন যারা নিজেকে সঠিক প্রমাণ করতে চায়। আর আমার মনে হয়না যে আমরা সব সময় সঠিক হবো আর সব সময় ভূল তাই যদি কেও আপনাকে কিছু বুঝায় তাহলে তার মতো করে বুঝার একটু দরকার।

এরপর সবাই কে রেসপেক্ট দিন আমি বলতে চাইছি যার সাথে জীবনে প্রথমবার দেখা হইছে তাকেও রেসপেক্ট দিন।এমটা করবেন না যে আপনি যাকে ইনপ্রস করতে চান তাকেই রেসপেক্ট দিবেন আর বাকি সবাইকে রেসপেক্ট দিবেন না।এটা লোকের চোখে আপনাকে নেগেটিভ করে দিবে – পরে আপনি যাকে রেসপেক্ট করবেন সে যদি আপনার পাশে থেকে চলে যায় তাহলে আর বাকি লোক গুলোও আপনার দুঃখ শোনার জন্য থাকবে না।তখন আপনি শুধু আফসোস করবেন কেন আমি একটি মনুষের জন্য সবাইকে ইগনোর করেছিলাম।

এরপর কোনো কিছু শিখার জন্য সব থেকে সহক উপায় হলো আপনাকে সেটা করতে হবে।যেমন অনেকেই বই হাতে নিয়ে বসে পরে আর মনে করে এক দু-বার পড়লেই তার মনে থেকে যাবে।তাহলে বলবো যদি এতোটাও সহজ হতো তাহলে প্রতিটা মানুষ আইপিএস হয়ে বসে থাকতো। তাই কেবল পড়লেই হবে না বার বার পড়তে হবে বার বার লিখতে হবে এবং প্যক্টিস করতে হবে তারপর আপনি সব কিছু মনে রাখতে পারবেন আর প্যক্টিস আপনাকে যেকোনো কাজে ব্যটার তৈরি করবে।

এরপর নিজেকে কখনই কারো সাথে রেস বা তুলান করবেন না, আপনি পড়াশোনা করছেন, চাকুরি করছেন বা অন্য কোনো ফিল্ডে আছেন।মনে রাখবেন এটা আপনর জীবনের একটা অংশ মাএ। পুরো জীবন না আপনাকে জীবনে বেঁচে থাকার জন্য কোনো না কোনো কিছু তো করতেই হবে যাতে আপনার কাছে টাকা আসে আর আপনি বাকি সব কিছু করতে পারেন।

তাই আপনার কাজ আপনার জীবনের একটি অংশ যাতে আপনার জীবনটা ভালোভাবে চলতে পারে।কিন্তু আপনর জীবনের রুলস গুলো কখনোই শেষ হতে দিবেন না। জীবন তো জীবনের মতো করেই চলতে থাকবে আপনাকে কেবল নতুন নতুন রাস্তা খুজে বের করতে হবে যাতে আপনি আগের বছরের থেকে এই বছরে নিজেকে আরেকটু উপরে নিয়ে যেতে পারেন।

আর সবশেষে বলবো লাকি বলে কোনো কিছু হয় বলে আমি জানিনা, আপনি যখন কোনো কাজ বার বার করেন তারপরে সেটায় অসফল হয়েও বার বার চেষ্টা করার পরে আপনি যখন সফল হবেন তখন আপনাকে লোকে বলবে তুমি অনেক লাকি।তাই নিজেকে লাকি বানানোর জন্য আপনাকে অনেক পরিশ্রম করতে হবে তাই কেবল ভাগ্যের ভরসায় বসে থাকবেন না। আপনার জীবনের ৮০% কাজ নিজের হাতে ও ২০% কাজ ভাগ্যের হাতে থাকা দরকার। এটা নয় যে আপনি ৮০% ভাগ্যের উপর ভরসা করে থাকবেন আর ২০% নিজে করবেন তাহলে এটা আপনাকে সব সময় অন্ধ বিশ্বাসের মধ্যে রাখবে।

এরপর জীবনে ছোট ছোট জিনিসের গুরুত্ব দেওয়া শিখুন, ছোট কথা,ছোট কাজ, বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেওয়া এসব কিছু আপনাকে বড় কোনো কাজ করার জন্য রেডি করবে।কারণ যে ছোট কিছু করতে পারবে না সে বড় কিছু কিভাবে করবে। তাই নিজেকে এমন মানুষ তৈরি করুন যার জীবনে প্রতিটা কাজে ছোট ছোট খুশি থাকবে যা তাকে অনেক বেশি অনন্দ দিবে এবং জীবনটাকে আরো সুন্দর করে তুলবে।

#ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *